09 Oct

Choose Best Web Hosting Service for Your Website

ইন্টারনেটে ওয়েব হোস্টিং এর জন্য সার্চ করলেই শত শত ওয়েব হোস্টিং প্রভাইডার খুব সহজে খুজে পাওয়া যায়। অনেক গুলি অপশন থাকার কারনে আমরা কনফিউসড হয়ে যাই যে কোন কোম্পানি থেকে হোস্টিং নিলে আমার জন্য ভালো হবে? এই আর্টিকেলটিতে আমি এই প্রশ্নটির উত্তরটি দেওয়ার চেষ্টা করবো। আশা করি এই আর্টিকেলটি  পড়ার পর ওয়েব হোস্টিং পছন্দ করার ক্ষেত্রে আপনাদের সব কনফিউশান দূর হয়ে যাবে।

What is Web Hosting

ওয়েবসাইটের জন্য বেস্ট ওয়েব হোস্টিং পছন্দ করার আগে আমারা জেনে নেই ওয়েব হোস্টিং কি? সহজ ভাষায় বলতে গেলে ওয়েব হোস্টিং হলো একটা স্টোরেজ বা (অনেকটা মেমরি কার্ডের মত) যেখানে ওয়েবসাইটের ডেটা গুলো স্টোর করা থাকে।

এক্ষেত্রে আমি একটা উদাহারন দেই। মনে করুন আপনি একটি বাড়ি করতে চাচ্ছেন। বাড়িটি করতে হলে অবশ্যই একটি জায়গা প্রয়োজন হবে। যদি জায়গা না থাকে তাহলে আপনি কখনো বাড়ি করতে পারবেননা আর বাড়ি না থাকার কারনে বাড়িতে কিছু রাখতেও পারা যাবেনা। ঠিক একই ভাবে হোস্টিং হচ্ছে ওয়েবসাইট রাখার জায়গা। আর ওয়েবসাইট হচ্ছে বাড়ির মত যেখানে বিভিন্ন জিনস পত্র সাজাবেন।

How to Choose Best Web Hosting

সাধারনত ওয়েব হোস্টিং বাছাই করার ক্ষেত্রে যে যে বিষয় গুলোর প্রতি নজর দিতে হবে এবং কেন সেগুলো নিছে উল্লেখ করা হলো।

Reliability

ওয়েব হোস্টিং পছন্দ করার ক্ষেত্রে সর্ব প্রথম আপনাকে যেই বিষয়টির ওপর নজর দিতে হবে সেটি হচ্ছে রিলায়াবিলিটি। আচ্ছা এখানে আমি রিলায়াবিলিটি বলতে কি বুজিয়েছি? রিলায়াবিলিটি বলতে এখানে চারটি দিককে বুজানো হয়েছে। সর্বপ্রথম হচ্ছে

ব্যাক্তি আথবা প্রতিষ্ঠান

অর্থাৎ আপনি যেই হোস্টিং প্রোভাইডার পছন্দ করবেন ওয়েব হোস্টিং নেওয়ার জন্য তিনি কি একজন ব্যাক্তি নাকি প্রতিষ্ঠান। আমরা সব সময় চেষ্টা করবো প্রতিষ্ঠান বা কোম্পানির থেকে ওয়েব হোস্টিং নেওয়ার জন্য। কেননা আপনি যদি একজন ব্যক্তির থেকে ওয়েব হোস্টিং নিয়ে থাকেন তাহলে অনেক ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। যেমন ঐ ব্যাক্তি যদি কিছু দিন যাওয়ার পর কোন কারনে সে ওয়েব হোস্টিং প্রোভাইড করা বন্ধ করে দিয়েছে। অথবা কোন কারানে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন কিন্তু এই মুহূর্তে আপনার সাপর্টের প্রয়োজন হয়েছে তখন কিন্তু আপনি সাপর্ট পাবেননা ইত্যাদি আরো অনেক কারন রয়েছে যার কারনে কখনো কোন ব্যাক্তির কাছ থেকে ওয়েব হোস্টিং নেওয়া ঠিক নয়। ওপর দিকে আপনি যদি কোন কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব হোস্টিং নিয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে উক্ত সমস্যা গুলোর সম্মুখীন হতে হবেনা। কেননা একটা প্রতিষ্ঠান কিন্তু কখনো অল্প সমায়ের জন্য ব্যবসায় করতে আসেনা তাদের চিন্তা থাকে লং টার্ম ব্যাবসায় করার। এছাড়া একটা প্রতিষ্ঠান চাইলেই কিন্তু প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিতে পারেনা কেননা এক্ষেত্রে অনেক আইনি জটিলতা থাকে।

সি-প্যানেল এর ফুল এক্সেস

অর্থাৎ আপনি যেই কোম্পানি থেকে ওয়েব হোস্টিং নিচ্ছেন তারা কি আপনাকে সি-প্যানেলের ফুল এক্সেস বা কনট্রল প্যানেল দিচ্ছে কিনা এটা দেখতে হবে। যদি প্রতিষ্ঠানটি সি-প্যানেল এর ফুল এক্সেস না দিয়ে থাকে তাহলে কখন ঐ প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব হোস্টিং নেওয়া যাবেনা।

হিডেন চার্জ

মনে করুন আপনি একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব হোস্টিং নিয়েছেন। আপনি ওয়েব হোস্টিং টি কিনেছেন ২০০০ টাকা দিয়ে। কিন্তু দেখা গেলো পরবর্তি বছর রিনিও করার ক্ষেত্রে বিল এসেছে ৩০০০ টাকা কিন্তু এটা কোথায়ও উল্লেখ করা ছিলোনা। এক্ষেত্রে এই ধরনের প্রতিষ্ঠান গুলো থেকে ওয়েব হোস্টিং নেওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে।

ট্র্যান্সফার

ট্র্যান্সফারের বিষয়টি অতান্ত গুরুতপূর্ন। কেননা ধরুন আপনি একটি প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব হোস্টিং নিয়েছেন কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পর তারা তাদের সার্ভিসের মূল্য বৃদ্ধি করেছে অথবা তাদের সার্ভিস আপনাকে আশানুরূপ সেটিস্ফাইড করতে পারেনি বা অন্য যে কোন কারনে আপনি ওয়েব হোস্টিং টি ট্র্যান্সফার করতে হচ্ছে। কিন্তু উক্ত প্রতিষ্ঠানটি যদি ট্র্যান্সফারের অপশন না রাখে তাহলে আপনাকে অনেক বড় সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। তাই ওয়েব হোস্টিং ট্র্যান্সফারের বিষয়টি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ন।

Flexibility

এখানে ফ্লেগজিবিলিটি বলতে নমনীয়তার কথা বলা হয়নি। এখানে ফ্লেগজিবিলিটি বলতে বোঝানো হয়েছে মনে করুন এপনি একটা ওয়েব হোস্টিং প্যাকেজ নিলেন এখন ১ জিবি। কিন্তু কিছুদিন যাওয়ার পরে আপনার মনে হলো ১জিবিতে হচ্ছে না আপনার ২জিবি ওয়েব হোস্টিং প্রয়োজন বা এর চাইতেও ভালো কোন প্যাকেজের প্রয়োজন। তো এক্ষেত্রে আপনার প্যাকেজটি ১ জিবি থেকে ২জিবি প্যাকেজে আপগ্রেড করতে হবে। এখন দেখতে হবে যে আপনি যেই প্রতিষ্ঠান থেকে ওয়েব হোস্টিং সার্ভিস নিয়েছেন তারা কি আপনাকে ১ জিবি থেকে ২ জিবিতে আপগ্রেড করার সুযোগ সুবিধা দিচ্ছে কিনা। এটা আপনাকে আগেথেকে জেনে নিতে হবে।

Quality

ওয়েব হোস্টিং এর কোয়ালিটি বলতে সাধারণত আমরা চারটি বিষয়কে বুজে থাকি। যেমনঃ

  1. সার্ভার আপটাইম কেমন
  2. সার্ভার স্পীড কেমন
  3. সার্ভার সিকিউরিটি কেমন এবং
  4. সার্ভারের লোকেশন আমেরিকাতে কিনা

Pricing

ওয়েব হোস্টিং নির্বাচন করার ক্ষেত্রে সর্বোশেষ যে বিষয়টির কথা আমরা চিন্তা করবো সেটি হচ্ছে প্রাইস বা মূল্য। দেখুন আমরা অনেক সময় ইন্টারনেটে অনেক বিজ্ঞাপন দেখে থাকি যে ১০ জিবি ওয়েব হোস্টিং ১০০০ টাকা বা ২০ জিবি ওয়েব হোস্টিং ২০০০ টাকা। আমরা এই অল্প টাকায় এত বেশী স্পেস দেখেই সাধারণত এই ধরনের হোস্টিং প্যাকেজ গুলি কিনে থাকি। সত্যি বলতে এটা করা একেবারেই উচিৎ নয়। আপনাকে আগে দেখতে হবে তারা সার্ভারের কোয়ালিটি অনুযায়ী হোস্টিং এর মূল্য নিদ্ধারন করছে কিনা। অবশ্যই মনে রাখবেন ভালো কিছু পেতে হলে ভালো কিছু টাকাও খরচ করে হবে।

Share this

Leave a reply